ফিরে যেতে চান

রাজশাহী মহানগরী উন্নয়নের পশ্চাতে গণপূর্ত বিভাগের ভূমিকা অনস্বীকার্য। রাজশাহী মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ভবন ও রাস্তাসমূহ তৈরি করে এ বিভাগ স্বকৃতিত্বের বিকাশ ঘটাতে সক্ষম হয়েছে।

গণপূর্ত অফিস (ছবি- জানুয়ারি ২০১৭)


এ বিভাগের পূর্বতন নাম ছিল যোগাযোগ ইমারত ও জলসেচ (C.B&I) বিভাগ।২ এর যোগাযোগ ও ইমারত (C&B) বিভাগটি শুধুমাত্র সরাকরি নির্মাণ কাজের জন্য নির্দিষ্ট ছিল। ১৯৫৯ সালে বিভাগটির নতুন নামকরণ করা হয়। পূর্ত, বিদ্যুৎ ও জলসেচ বিভাগ। সড়ক ও জনপথ বিভাগটি সম্পূর্ণভাবে পৃথক করে রেলওয়ে, নৌপথ ও সড়ক পরিবহনকে একত্রিত করে দেওয়া হয়। ১৯৬২ সালে যোগাযোগ ও ইমারত বিভক্ত করে ইমারত পরিদপ্তর এবং সড়ক ও জনপথ পরিদপ্তর নামকরণ করা হয়। এ সময় রাজশাহীতে ইমারত পরিদপ্তরের ১টি সার্কেল অফিস নির্মাণ করা হয়। ১৯৭৭ সালে ইমারত পরিদপ্তরের পুনঃ নামকরণ করে গণপূর্ত বিভাগ বা Public Works Department (PWP)  রাখা হয়।২ নামের পরিবর্তন ঘটলেও গণপূর্ত বিভাগ এখনও সিঅ্যান্ডবি নামেই পরিচিত এবং নগরীর সিঅ্যান্ডবি মোড়টি এ অফিসের নামের ভিত্তিতেই গড়ে উঠেছে।  
এ বিভাগের পূর্বতন ইতিহাসে বলা যায় ১৮৪৯ সালে অবিভক্ত ভারতে এ বিভাগ সৃষ্টির পরপরই রাজশাহী ডিভিশনের কার্যক্রম আরম্ভ হয়েছিল।৯ এর সার্কেল অফিস ছিল বর্তমান ভারতের দার্জিলিয়ে। তখন রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলা, রংপুর বিভাগের ৮টি জেলা ও ভারতের মালদহ জেলা ছিল রাজশাহী ডিভিশনের আওতাধীন। ১৯৪৭ সালে মালদহ পৃথক হয়ে যায়। ক্রমান্বয়ে রাজশাহী বিভাগের বৃহত্তর ৫টি জেলায় এবং নব সৃষ্টি জেলাসমূহে পৃথক পৃথক ডিভিশন তৈরি হয়। পূর্বে জোন অফিসের প্রশাসনিক এরিয়া ছিল উত্তরাঞ্চলের ১৬টি জেলা। বর্তমানে রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলা। জোন এরিয়া রাজশাহী ও বগুড়া দুটি সার্কেলে বিভক্ত। রাজশাহী সার্কেল ৬টি প্রশাসনিক ডিভিশনে বিভক্ত। ডিভিশনগুলো রাজশাহী-১, রাজশাহী-২, পাবনা, নাটোর, নওগাঁ ও চাঁপাই নবাবগঞ্জ।৪১২ রাজশাহী জোন, সার্কেল, ডিভিশন একই ভবনে অবস্থিত। বর্তমান জোনের প্রধান হলেন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী। সার্কেল প্রধান হলেন তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এবং ডিভিশনের প্রধান হলেন নির্বাহী প্রকৌশলী-১ ও নির্বাহী প্রকৌশলী-২ এ বিভক্ত।