ফিরে যেতে চান

শ্রম আদালত

১৯৭০ সালে রাজশাহী কেন্দ্রীয় করাগারের সামনে শ্রম আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে লক্ষ্মীপুর, কাজীহাটা ও ২৬ ডিসেম্বর ২০০২ তারিখে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে রাজশাহী জজ কোর্টের উত্তর পাশে মহানগরীর মহিষবাথানে আলিয়া মাদ্রাসা রোডে একটি ভাড়া বাড়িতে স্থানান্তর হয়। বর্তমানে বর্ণালী মোড়ের পশ্চিম পাশে গ্রেটার রোডের দক্ষিণে অবস্থিত। ২০১২ সালের ৮ জুলাই মহিষবাথান থেকে এখানে স্থানান্তর হয়।
শ্রম আদালতে জেলা ও দায়রা জজ মর্যাদা সম্পন্ন একজন চেয়ারম্যান ছাড়াও ১০ জন সদস্য আছেন। সদস্যগণ মালিক ও শ্রমিক পক্ষের প্রতিনিধি। 
চেয়ারম্যান ট্রেড ইউনিয়ন বিষয়ক বিভিন্ন সমস্যা বা বিরোধ বিষয়ক সমস্যার রায় দিয়ে থাকেন। এছাড়া পেমেন্ট ওয়েজ এর অথরিটি, মৃত শ্রমিকের ক্ষতিপূরণ প্রদান বিষয়ে কমিশনার ও বিদেশে শ্রমিক নিয়োগ সংক্রান্ত মামলার নিস্পত্তি করে। রাজশাহী শ্রম আদালত মাসে সাত দিন বগুড়াই সার্কিট কোর্টের দায়িত্ব পালন করে। বগুড়ার ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘ (টিএমএসএস) ভবনে এ আদালতের কার্যালয় আছে।৩২০