ফিরে যেতে চান

উদ্যান তত্ত্ববিদের কার্যালয় ও হর্টিকালচার সেন্টার, রাজশাহী কোর্ট

রাজশাহী কোর্টের পূর্ব পাশে রাজশাহী-চাঁপাই নবাবগঞ্জ সড়কের দক্ষিণ ধার ঘেঁষে নবীনগর মৌজার বুলনপুরে এ হর্টিকালচার সেন্টারের অবস্থান। ২.৮ একর সরকারি জমিতে ভিন্ন নামে সেন্টারটি স্থাপন হয়েছিল ১৯৬৮ সালে। পরবর্তীতে সেন্টারটি উদ্যান উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে আসে।৬৩৪ ১৯৯১ সালের জেলা গেজেটীয়ার বৃহত্তর রাজশাহীর তথ্যানুসারে ১৯৭৩ সালের ১ জুলাই থেকে ১টি উদ্যান উন্নয়ন বোর্ড গঠন করা হয়।২ রাজশাহীতে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের বিভাগীয় নার্সারী অফিস ও কৃষি বিভাগের দ্রুত ফল উৎপাদন প্রকল্প এ বোর্ডের সঙ্গে যুক্ত করে দেয়া হয়। ১৯৮২ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট, কল্যাণপুর ও রাজশাহীর ভাটাপাড়া নার্সারী এ বোর্ডের অধীনে ছিল। উদ্যানগুলোর কাজ হলো বিভিন্ন ফল ও সবজির চারা, কলম, বীজ জনসাধারণের মাঝে বিক্রয় করা। 
বর্তমানে রাজশাহী কোর্টের হর্টিকালচার সেন্টার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রতিষ্ঠান। ২০০৫-২০০৬ সালে এখানে ৮০০ বর্গফুটের একটি সেমিপাকা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটিতে একসঙ্গে ৩০জন কৃষক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারেন।  বর্তমানে সেন্টারটির প্রশাসনিক প্রধান হলেন একজন উদ্যান তত্ত্ববিদ। তাঁর কার্যালয়ও সেন্টারের ভিতরে। ১ জন উদ্যান তত্ত্ববিদ, ৩ জন সহকারী উদ্যান কর্মকর্তা, ৮জন ফার্ম লেবারার, ৩ জন নিরাপত্তা প্রহরীসহ সেন্টারের রাজস্বখাতের কর্মচারীর সংখ্যা ২১জন। এছাড়াও এখানে একটি প্রকল্পের ১ জন সিনিয়র উদ্যান তত্ত্ববিদ আছেন।৬৩৪ এ খাস জায়গাটি উদ্যানের নামে হস্তান্তর অথবা দীর্ঘ মেয়াদে বন্দোবস্ত দিলে আরো উন্নয়নমূলক পরিকল্পনা গ্রহণ সম্ভব।