ফিরে যেতে চান

ক্লেমন রাজশাহী ক্রিকেট একাডেমি

ক্লেমন রাজশাহী ক্রিকেট একাডেমি শহীদ কামারুজ্জামান স্টেডিয়াম বা বিভাগীয় স্টেডিয়ামে অবস্থিত। একাডেমির অবকাঠামো না থাকার কারণে স্টেডিয়ামের বাহির অংশের ঘর, মাঠ ভাড়া নিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলটের উদ্যোগে ২০০৮ সালের ১ জুলাই একাডেমি নির্মিত হয়। এর প্রাথমিক নাম রাজশাহী ক্রিকেট একাডেমি। ২০১০ সালের জুনে একাডেমি পরিচালনার স্পন্সারে আসে ক্লেমন কোম্পানী। তখন এর নামকরণ করা হয় ক্লেমন রাজশাহী ক্রিকেট একাডেমি। মানসম্মত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উত্তরাঞ্চলের ক্রিকেট অঙ্গন উন্নীতকরণের লক্ষে তরুণরাই এখানে প্রশিক্ষণ গ্রহণের মাধ্যমে জাতীয় ক্রিকেটাঙ্গনকে সমৃদ্ধ করছে। উত্তরাঞ্চলের সব জেলাসহ যশোর, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, মাগুরা, ঢাকা, গাজীপুর প্রভৃতি জেলার তরুণরা এ একাডেমির ছাত্র।

শহীদ কামারুজ্জামান স্টেডিয়াম সীমানা চত্বরের পশ্চিমাংশে ক্লেমন রাজশাহী ক্রিকেট একাডেমি

১ জন সভাপতি ও ৬ জন পরিচালক মোট ৭ সদস্য কার্যনির্বাহী কমিটি দ্বারা একাডেমি পরিচালিত হয়। কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য আছেন ১ জন ম্যানেজার (প্রশাসন ও তথ্য), ১ জন সহকারী ম্যানেজার (প্রশাসন), ১ জন প্রধান কোচ, ৫ জন সহকারী কোচ ও ৩ জন গ্রাউন্ডসম্যান। এখানে নতুন প্রশিক্ষণার্থীরা ৪ বছরের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে থাকে। বয়স অনুযায়ী প্রশিক্ষণার্থীরা ৪টি শ্রেণিতে বিভক্ত: অনূর্ধ্ব ১২, অনূর্ধ্ব ১৪, অনূর্ধ্ব ১৬ ও অনূর্ধ্ব ১৮। ২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী একাডেমির অনূর্ধ্ব ১২ শ্রেণিত ৬৫ জন, অনূর্ধ্ব ১৪ শ্রেণিতে ৩৫ জন, অনূর্ধ্ব ১৬ শ্রেণিত ৪২ জন ও অনূর্ধ্ব ১৮ শ্রেণিতে ৪৫ জন প্রশিক্ষণার্থী আছে।৩৪৯