ফিরে যেতে চান

বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি)

বিএনসিসির মহাস্থান রেজিমেন্ট (রাজশাহী ডিভিশন) এর সদর দপ্তর মহানগরীর শালবাগানে অবস্থিত। বাংলাদেশ ক্যাডেট কোর রাজশাহী কলেজ শাখার প্রাক্তন (১৯৭৭ পর্যন্ত) কমান্ডার ও UOTC (University of Officers Core) রাজশাহী কলেজ শাখার প্রাক্তন রেজিমেন্টাল পুলিশ ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা কাজী আমিরুল করিমের নিকট থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে বিএনসিসি’র কার্যক্রম পাকিস্তান আমল থেকেই। ১৯৭৯ সালে বিএনসিসি গঠনের পূর্বে এটা তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত ছিল। স্কুল পর্যায়ে ছিল জেসিসি (Junior Cadet Core), কলেজ পর্যায়ে ছিল বিসিসি (Bangladesh Cadet Core) এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিল ইউওটিসি (University Officers Training Core) |  জেসিসি ও বিসিসি পরিচালিত হতো শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক এবং প্রশিক্ষণ দিত সেনা বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত স্টাফ। ইউওটিসি পরিচালিত হতো বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কর্তৃক এবং প্রশিক্ষণ দিত সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা-স্টাফ। ১৯৭৯ সালে এ তিনটি কোর একত্রিত হয়ে বিএনসিসি হয়। পূর্বে বিএনসিসি’র অফিস বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভবনে ভাড়া ছিল। বর্তমান অফিসটি গণপূর্ত বিভাগ ১৯৯৬-১৯৯৯ সালে ৬৯ লাখ ৪৩ হাজার টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে নির্মাণ করে।৯
১১ জানুয়ারি ২০০৩ তারিখের প্রাপ্ত তথ্যনুসারে মহাস্থান রেজিমেন্ট সদর দপ্তরের প্রধান একজন লে. কর্নেল। ছাত্র-ছাত্রীদের প্রাথমিক সামরিক প্রশিক্ষণ ধারণা দেয়ার উদ্দেশ্যে মহানগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিএনসিসির কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ১৩ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে মহাস্থান রেজিমেন্টের এরিয়া রাজশাহী ও রংপুর বিভাগ।