ফিরে যেতে চান

রাজশাহী ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ

১৯৮৪ সালে সোনাদিঘি মসজিদের পাশে রেজাদের দোকানে রাজশাহীর প্রতি অবহেলা সম্পর্কে কয়েকজন ছাত্র তরুণের আলোচনা থেকেই এ সংগঠনের জন্ম। প্রাথমিক নাম ছিল রাজশাহী উন্নয়ন যুব পরিষদ। শ্লোগান ছিল ‘জাগো জাগো রাজশাহীবাসী জাগো’। রাজশাহীকে শিক্ষানগরী হিসেবে ঘোষণাসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে আন্দোলনে মুখর হলে ছাত্র-তরুণরা এর সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে। ২১ ফেব্রুয়ারি প্রভাত ফেরি শেষে রাজশাহী কলেজ শহীদ মিনারে তরুণ সংগঠনের লক্ষ্য ঘোষণা হয়। তখনও উদ্যোক্তার সংখ্যা মাত্র ৭/৮ জন। এ দিয়েই রাজপথে মিছিল। সরকার বিরোধী আন্দোলন মনে করে মিছিল থেকেই পুলিশ গ্রেফতার করে পরিষদ নেতা ওয়ালিউর রহমান বাবু, রেজা, মান্না, ডালিম, শরীফকে। তাঁদের থানায় দেখতে গিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রীর নেতা সালাউদ্দিন বেবীও গ্রেফতার হন। তাঁদের গ্রেফতার রাজশাহীর সচেতন মহলে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। অনেকে পরিষদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হন। তাঁরা সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পরিষদের নতুন নাম ঘোষণা করেন রাজশাহী ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ। এ সংগঠনটির কার্যক্রম দু/তিন বছর অব্যাহত ছিল। পরবর্তীতে সাংবাদিক সাইদুর রহমানের নেতৃত্বে গঠিত হয়েছিল সচেতন নাগরিক কেন্দ্র।
রাজশাহী উন্নয়ন যুব পরিষদের প্রথম উদ্যোক্তা ছিলেন ওয়ালিউর রহমান বাবু, বাবলু, কবির, রেজা। তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন সন্টু, মামুন, মাহমুদ, মান্না, ডালিম, শরীফ। পরবর্তীতে আরো অনেকে যোগদান করেন। তাঁদের মধ্যে ছিলেন সালাউদ্দিন বেবী, সুজাউদ্দিন ছোটন, হাবিব, মাহাতাব চৌধুরী টুটু, সাইদুর রহমান, সাইফুল ইসলাম মাখন, হাসনাত আমজাদ, সিরাজুদ্দৌলাহ বাহার, বাদশা প্রমুখ। পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করতেন সাইদ উদ্দিন আহমেদ, প্রকৌশলী ইউনুস, হায়দার আলী, রুহুল আমিন প্রামাণিক, মঞ্জুরুল হক, মুস্তাফিজুর রহমান খান, আহমেদ সফিউদ্দিন, আ খ ম সালেহ প্রমুখ।৫৬৬
এ সংগঠনটির শ্লোগান ‘জাগো জাগো রাজশাহীবাসী জাগো’ বিশ শতাব্দীর নব্বই দশকের শুরুতে টিভি স্টুডিও’র আন্দোলনের মিছিলেও শোনা যায়।