ফিরে যেতে চান

রাজশাহী ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন জেনারেল হাসপাতাল

রাজশাহী ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন জেনারেল হাসপাতাল (ছবি- ২০১৬)

রাজশাহী ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন জেনারেল হাসাপাতাল লক্ষ্মীপুর ঝাউতলা মোড়ের পূর্ব পাশে অবস্থিত। প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ১৩ সেন্টেম্বর ২০০৬ তারিখে হাসপাতালটির ভবন নির্মাণের ভিত্তি স্থাপন এবং রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ২০১২ সালের ১৭ মার্চ উদ্বোধন করেন। ৪ তলা বিশিষ্ট এ ভবনের মোট ফ্লোরের আয়তন ৬৫.৯৪১ বর্গফুট। এর ৪টি রুমে ৬টি সাবওয়ার্ড আছে। শয্যা সংখ্যা ২৫০ টি। হাসাপাতালে ১৯ জন চিকিৎসক, ১৩ জন কনসালটেন্ট এবং অন্যান্য দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মচারী স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে থাকেন। হাসপাতাল একটি কার্যনির্বাহী কমিটির দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। কমিটির বর্তমান সদস্য ২৫ জন। কমিটির বর্তমান সভাপতি প্রফেসর ডা. এম ফজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডা. মামুন উর রশীদ।৩৪৭  হাসপাতালটির জমি বরাদ্দ ও ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের তৎকালীন মেয়র মো. মিজানুর রহমান মিনু বিশেষ ভূমিকা পালন করেন।
২০০২ সালের ২৬ নভেম্বর ও ৩০ নভেম্বর প্রাপ্ত তথ্যানুসারে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দুটি কক্ষে ১৯৮১ সালে সমাজসেবক আলহাজ্জ ইশাহাক আলী, ডা. সুলতান আহমেদ, ডা. জুবাইদা প্রমুখের উদ্যোগে রাজশাহী ডায়াবেটিক এ্যাসোসিয়েশনের কার্যক্রম শুরু হয়।৩
১৯৮৩ সালে চণ্ডীপুরে টিনশেডের একটি ভবনে স্থানান্তরিত হয়। কাজী রওশন সম্পাদিত বিভাগ গাইড রাজশাহী গ্রন্থে ১৯৮৬ সালে এটি স্থাপনের কথা উল্লেখ আছে। ২০০১-২০০২ সালে দুটি ভবন নির্মাণ হয়। উভয় ভবনের খোদিত ফলক থেকে জানা যায়, ১নং ভবনের নাম হালিমা-মনজুর ডায়াবেটিক ভবন। মহানগরীর সুলতানাবাদে বালিয়াঘাটা হাউসের মিসেস হালিমা আহম্মেদ ও আলহাজ্জ মনজুর আহম্মদ ভবনটি নির্মাণের অর্থ প্রদান করেন। এর উদ্বোধন হয় ২৬ অক্টোবর ২০০১ তারিখে। ২নং ভবনের নাম হাসিনা-আমিনুল ডায়াবেটিক ভবন। এর নির্মাণের টাকা দান করেন ৩/৯, আসাদ এভিনিউ, মোহম্মদপুর, ঢাকার মিসেস  হাসিনা ইসলাম ও মো. আমিনুল ইসলাম। এটি ১ নভেম্বর ২০০২ তারিখে উদ্বোধন হয়। ৮ ডিসেম্বর ২০০৩ তারিখে দেখা যায়, তৃতীয় ভবনের ২য় তলার নির্মাণ কাজ চলছে। তবে এক তলার কাজ শেষ হয়ে ২০০৩ সালের আগস্ট মাসে উদ্বোধন হয়।  ঝাউতলা মোড়ের পশ্চিম পাশের এ পুরনো ভবনে ২০১২ সালের অক্টোবরে রাজশাহী ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন নার্সিং ইনস্টিটিউট স্থাপন করা হয়। নার্সিং ইনস্টিটিউট উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয় এর প্রথম শিক্ষা বর্ষ।৩৪৭
এখানে ডায়াবেটিক রোগ ও ডায়াবেটিক রোগ সম্পর্কিত বিভিন্ন পরীক্ষা ও চিকিৎসা প্রদান করা হয়। এছাড়াও এর প্যাথলজিতে বাইরের যে কোন রোগীর মল, মূত্র, রক্ত প্রভৃতি পরীক্ষা করা হয়। ২৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি নির্বাহী কমিটি দ্বারা এটা পরিচালিত হয়। ৩০ নভেম্বর ২০০২ তারিখে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে কমিটির সভাপতি ডা. জুবাইদা এবং সাধারণ সম্পাদক হলেন আলহাজ্জ মো. জিয়াউল হক জিল্লু। ৫ জন ডাক্তার ও ৫ জন কনসালটেন্ট চিকিৎসা প্রদান করেন।