ফিরে যেতে চান

রাজশাহীতে বেশ কয়েকটি আবৃত্তি সংগঠন কাজ করে আসছে। এগুলোর মধ্যে স্বনন, রাজশাহী আবৃত্তি পরিষদ, সুন্দরম, আবৃত্তি চর্চাকেন্দ্র, বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদ, শুদ্ধবাক উল্লেখযোগ্য। 
স্বনন: ১৯৮১ সালের ২১ সেপ্টেম্বর হাসান আজিজুল হক, সনৎ কুমার সাহা, নাজিম মাহমুদ, গোলাম মুর্শিদ, জাহিদুল হক টুকু, এসএম মনিরুজ্জামান, আরিফুল হক কুমার , কাজল প্রমুখের উদ্যোগে এবং হাসান আজিজুল হকের সভাপতিত্বে ও নামকরণে রাজশাহীতে প্রথম আবৃত্তি সংগঠন ‘স্বনন’ প্রতিষ্ঠ পায়।
রাজশাহী আবৃত্তি পরিষদ: ১৯৮৯ সালের ২১ সেপ্টেম্বর প্রফেসর রুহুল আমিন প্রামাণিক, ডা. সোহরাব হোসেন, সৈয়দ মোস্তাক আলী, আনোয়ারুল আবেদীন, শামস ইবনে ওবায়েদ সুমন ও মনিরা রহমান মিঠির উদ্যোগে রাজশাহী আবৃত্তি পরিষদের যাত্রা শুরু হয়।
সুন্দরম: সুন্দরমের প্রতিষ্ঠা ১৯৯৩ সালের ১৪ই এপ্রিল। এ প্রতিষ্ঠানটি স্থাপনের প্রথম উদ্যোগ গ্রহণ করেন প্রফেসর রুহুল আমিন প্রামাণিক, মোহাম্মদ কামাল, আরিফুল হক কুমার, আরিফ আহম্মেদ, হাসান রাজা ও মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল।
আবৃত্তি চর্চাকেন্দ্র: শাহীন আক্তার, মোহাম্মদ কামাল, খোকন তালুকদার, কামরুল বাহার আরিফ, মুরাদ ও মনিরুজ্জামান উজ্জ্বলের উদ্যোগে ২০১০ সালের ১০ জানুয়ারি আবৃত্তি চর্চাকেন্দ্র পথচলা শুরু করে। প্রথম আহবায়ক হন শাহীন আক্তার এবং সদস্য সচিব হন মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল।
বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদ: মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলীর উদ্যোগে ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠানটির রাজশাহী শাখার যাত্রা শুরু হয়।
শুদ্ধবাক : শিশু-কিশোরদের প্রমিত উচ্চারণ ও আবৃত্তি শেখানোর প্রত্যয়ে সংগঠনটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পরিচালিত হয়ে আসছেন।