ফিরে যেতে চান

বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দক্ষিণ পাশে বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগারের অবস্থান। এখানে গ্রন্থাগারটি ১৯৮৩ সালে চালু করা হয়। তবে এর ইতিহাস আরো প্রাচীন। এর প্রাথমিক নাম ছিল পাকিস্তান কাউন্সিল।৬৮২ ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীনের পর সংশোধিত নাম হয় বাংলাদেশ পরিষদ।৬৯৮ বাংলাদেশ পরিষদ লাইব্রেরির বিলুপ্তি ঘটিয়ে গ্রন্থাগারটি জন্ম লাভ করে। আধুনিক পরিকল্পনায় ৩.৮২ একর জমির উপর ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হয় ১৯৭৪ সালে এবং শেষ হয় ১৯৭৮ সালে। তবে মূল পরিকল্পনা এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। পরিকল্পনা অনুসারে এখানে কমপ্লেক্স নির্মাণের কথা। কমপ্লেক্সে থাকবে স্থানীয় শিল্প, অডিটোরিয়াম। প্রকাশিত হবে নিজস্ব প্রকাশনা, গবেষণা ও অনুলিপি।৩ ২০১৫ সালের ৬ জুলাইয়ের তথ্যানুসারে বইয়ের সংখ্যা ৭৫ হাজারেরও বেশি। দৈনিক পত্রিকার সংখ্যা ১৭ টি, সামায়িকী সংখ্যা ৬টি। বর্তমানে বিদেশি সাময়িকী নেই।৫১৮ ২৬ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে উপ পরিচালকের প্রদত্ত তথ্যানুসারে দৈনিক গড় পাঠকের সংখ্যা ২৫৬ জন। গণগ্রন্থাগারটি সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। রমজান মাসে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩.৩০ টা। সপ্তাহে বৃহস্পতি ও শুক্রবার এবং অন্যান্য সরকারি ছুটির দিন বন্ধ।

বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার (উত্তরমুখী)

২০০২ সালে জানা যায়, এখানে প্রায় ৪৫ হাজার গ্রন্থ আছে। দৈনিক ২৪ টি ও ৪ টি বিদেশিসহ মোট ৪৬ টি সাময়িকী নেয়া হয়।৮৫ ২শ আসনের বিশাল এক পাঠকক্ষ, রেফারেন্স বিভাগ ও শিশু পাঠকক্ষ আছে। গড় পাঠকের সংখ্যা এক হাজার থেকে বারোশ। শিক্ষার্থীদের জন্য এখানে বিভিন্ন বিষয়ের পৃথক সেল্ফ ও পাঠের ব্যবস্থা আছে। নগরীর সোনাদিঘির মোড়ে এর একটি শাখা আছে। পূর্বে এর প্রধানের পদবি ছিল সিনিয়র গ্রন্থাগারিক। বর্তমানে উপ পরিচালক। তার প্রশাসনিক এরিয়া রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬টি জেলা। ১৬ জেলায় সরকারি গণগ্রন্থাগারের সংখ্যা ১৭টি।৫১৮