ফিরে যেতে চান

রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজ

রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজের প্রধান গেট (পূর্বমুখী)

সামজ  সেবক আয়েন উদ্দীন, শাহ আব্দুল গোফুর প্রমুখের অগ্রগামী প্রচেষ্টায় স্থানীয় সরকারি কলেজের ১২ জন ছাত্রীসহ মোট ২০/২২ জন ছাত্রী নিয়ে ১৯৬২ সালের নভেম্বর মাসে মহিলা কলেজের যাত্রা শুরুহয়।১ জমির পরিমাণ প্রায় ১০ একর।১০৯ 
তবে এ কলেজের বাংলা বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষক গোলাম কবির ১৯৬২ সালের ২৪ এপ্রিল কলেজ প্রতিষ্ঠার তারিখ উল্লেখ করেন ‘রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজ’ শিরোনাম প্রবন্ধে। কলেজ যাত্রার সময় ২৫ জন শিক্ষার্থীর কথা উল্লেখ আছে। কাদিরগঞ্জ মহল্লায় কলেজের এ জায়গাটি ছিল তারিনী বাবুর বাগান বাড়ি। তাঁর তথ্যানুসারে এ বাগানবাড়িটির আয়তন ছিল ৩০ বিঘা। সেখানে একটি নাট্যশালাও ছিল। ১৯৪৭ সালের পর বাগান বাড়িটি পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকার কারণে রাজশাহী কলেজের কিছু ছাত্র সেখানকার একটি ভবনে মেস করে থাকতো। কলেজের প্রথম অধ্যক্ষ ছিলেন রাজশাহী কলেজের অবসরপ্রাপ্ত উপাধ্যক্ষ আলহাজ্জ আহমদ হোসেন (২৪ এপ্রিল ১৯৬২-১৯৬৩)।৩০৩
এর প্রকৃত প্রতিষ্ঠাকাল হিসেব করলে আরো পিছনে যেতে হয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম রেজিস্ট্রার মৌলবী ওসমান গণি ও কতিপয় শিক্ষিত ব্যক্তি পিএন বালিকা বিদ্যালয়ের দোতলায় ১৯৫৭ সালে রাজশাহী মহিলা কলেজ নামে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছিল। কিন্তু ১৯৬০ সালে ছাত্রীর অভাবে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। সুতরাং বর্তমান রাজশাহী মহিলা কলেজকে তারই সংস্করণ বলতে পারি। ১৯৬৮ সালের ২৫ এপ্রিল কলেজটি সরকারি হয়। ২০০৩ সালের ১২ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত যুগান্তর পত্রিকার প্রতিবেদন অনুসারে এখানে এইচএসসি ও ডিগ্রী মিলে ছাত্রী সংখ্যা ৭৫০ জন। ৩ জন অধ্যাপকসহ শিক্ষকের সংখ্যা ৪৬ জন।৮৭
১৫ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী বর্তমানে এ কলেজের ছাত্রী পাঁচ হাজারের বেশি। একাদশ থেকে স্নাতক পর্যন্ত পড়ানো হয়। বাংলা, ইংরেজি, ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, ভূগোল ও দর্শন বিষয়ে অনার্স আছে । এইচএসসি পরীক্ষা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহীর অধীনে হয়। স্নাতক জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধীভুক্ত। সাংগঠনিক কাঠামো অনুযায়ী শিক্ষকের সংখ্যা ৬৯ জন।