ফিরে যেতে চান

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজ

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজ ভবন এবং তার নির্মাণকালীন তথ্য বোর্ড ও উদ্বোধনের ফলক


রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজ মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়াম (রাজশাহী জেলা স্টেডিয়াম) এর উত্তর পাশে শালবাগানে (বাঁশের আড্ডা) অবস্থিত। সরকার দেশের সাতটি শিক্ষা বোর্ডের তত্ত্বাবধানে ও অর্থায়নে সাতটি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহী প্রকল্প বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করে। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের তৎকালীন মেয়র মো. মিজানুর রহমান মিনু ২০০৪ সালের জুনে  প্রতিষ্ঠানটির অবকাঠামো নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. তানবিরুল আলম একটি ভবনের উদ্বোধন করেন ৮ জুন ২০১৪ তারিখে। ২০১০ সালের ১ জুলাই একাদশ শ্রেণিতে মানবিক, বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা গ্রুপে ভর্তির মাধ্যমে এর একাডেমিক যাত্রা আরম্ভ হয়। ২০১১ সালের জানুয়ারিতে প্রথম থেকে নবম শ্রেণিতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। বর্তমানেও একাডেমিক কার্যক্রম প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি। 
এ ক্যাম্পাসের আয়তন ১.৭০৮৭ একর। প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হয় ৭ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। রাজশাহী কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. মোকবুল হোসেন এর প্রথম অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন। তিনি একজন কবি ও গবেষক। তার লেখক নাম সালিম সাবরিন। প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ও প্রথম শিক্ষক হিসেবে এর উন্নয়নে তিনি যথেষ্ট ভূমিকা পালন করেন। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রতিষ্ঠানের একমাত্র ম্যান পাওয়ার হওয়ায় কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে কলেজের উন্নয়ন ও স্থানীয় মানুষের সহযোগিতা প্রাপ্তিতে দক্ষ ম্যানেজারের পরিচয় দেন। বর্তমানে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট গভর্নিং বডি প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক শাখার যুগ্ম সচিব বডির সভাপতি। সিনিয়র সহসভাপতি রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ সদস্য সচিব।
কলেজ ও স্কুল শাখার জন্য পূর্ব-পশ্চিম দৈর্ঘ্যরে পাশাপাশি চারতলা বিশিষ্ট দুটি ভবন আছে। কলেজ শাখায় অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষের অফিস, শিক্ষক লাউঞ্জ, ল্যাবরেটরী, মিলনায়তন ও ১২ টি শ্রেণিকক্ষ আছে। স্কুল শাখায় আছে শিক্ষক লাউঞ্জ, লাইব্রেরি, কমনরুম, ল্যাবরেটরী ও ১৯ টি শ্রেণিকক্ষ।২৮৩ এছাড়া চত্বরের পশ্চিম পাশে আছে একটি একতলা ক্যাফে কনফারেন্স ভবন। চত্বরের পূর্ব পাশে জাতীয় শহীদ মিনারের আদলে একটি শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়েছে। ২০১৩ সালের ১৯ ডিসেম্বর রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. তানবিরুল আলম, সচিব প্রফেসর মো. আব্দুর রউফ মিয়া ও অত্র স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোহা. মোকবুল হোসেন শহীদ মিনারের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১৪ সালের ১৬ ডিসেম্বর রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও মহানগরী শাখার সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন শহীদ মিনারটি উদ্বোধন করেন। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে কলেজটি সরকারি করা হয়েছে।৮০৮