ফিরে যেতে চান

রাজশাহী মডেল স্কুল এন্ড কলেজ

এ প্রতিষ্ঠানটির কয়েক বার নাম পরিবর্তন হয়। নির্মাণাধীন প্রকল্পের নাম ছিল উচ্চ মাধ্যমিক মডেল বিদ্যালয়। ঢাকা মহানগরীসহ তৎকালীন ৬টি বিভাগে ৯টি বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য প্রকল্পটি গৃহীত হয়েছিল। রাজশাহীতে প্রকল্প বাস্তবায়নের পর রাজশাহী মডেল স্কুল ও কলেজ নামে কার্যক্রম আরম্ভ করে। ২০০৯ সালের ১ অক্টোবর ও শব্দের পরিবর্তে এন্ড যুক্ত করে নামকরণ হয় রাজশাহী মডেল স্কুল এন্ড কলেজ।২৯৭ এর অবস্থান কাজীহাটার বাংলাদেশ বেতার রাজশাহীর পিছনে। বাংলাদেশ ব্যাংক ও বেতার উভয়ের সীমানা প্রাচীরের মাঝ দিয়ে দক্ষিণমুখী রাস্তাটিকে প্রশস্তকরণ করা হয়েছিল। এ প্রতিষ্ঠানটি ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনকে কেন্দ্র করে। সে বেতার কেন্দ্রের পূর্ব পাশের সীমানা প্রাচীর কিছুটা সরিয়ে নিতে হয়েছিল।
প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ১১ মার্চ ২০০৪ তারিখে এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।২৪৯ ৩০ ডিসেম্বর ২০০৫ তারিখে নির্মাণ কাজ শেষ হয়। ফ্যাসিলিটিজ ডিপার্টমেন্ট নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করে। পাঁচ তলা বিশিষ্ট বিদ্যালয় ভবনের উত্তর পাশেই অধ্যক্ষের দ্বিতল বাসভবন নির্মাণ করা হয়েছে।২৫০ নির্মাণ ব্যয় হয়েছে ৫ কোটি ১৩ লাখ ৮৪ হাজার টাকা।২৫১ এর প্রথম অধ্যক্ষ ড. নাইদ শামসুল হুদা।২৫২

রাজশাহী মডেল স্কুল এন্ড কলেজ

এ বিদ্যালয়ের প্রথম সভা বিভাগীয় কমিশনার মোসলেহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে¡ ৯ জানুয়ারি ২০০৬ তারিখে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণিতে ভর্তির সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ১৫ থেকে ২২ জানুয়ারি ২০০৬ পর্যন্ত পত্র গ্রহণ ও জমা দানের সময় নির্ধারিত হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ৩০০ জন এবং ৭ম, ৮ম ও ৯ম শ্রেণিতে ২০০ জন করে মোট ৯০০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির সুযোগ পায়।২৫১
আন্ত:মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০১২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে প্রথম শ্রেণি থেকে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বর্তমান এর ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যা ১৪০০ জন। অধ্যক্ষসহ শিক্ষক সংখ্যা ৬৩ জন এবং বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মচারীর সংখ্যা ২০ জন। এটি বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানি।২৯৭ ১১ সদস্য বিশিষ্ট একটি পরিচালনা পর্যদ দ্বারা পরিচালিত হয়। রাজশাহী বিভাগের কমিশনার পর্ষদের সভাপতি এবং অধ্যক্ষ সদস্য সচিব।২৯৮ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে কলেজটি সরকারি করা হয়েছে।৮০৮