ফিরে যেতে চান

হামিদপুর নওদাপাড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়

হামিদপুর নওদাপাড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় (পূর্বমুখী)

হামিদপুর নওদাপাড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় নওদাপাড়ায় রাজশাহী-নওগাঁ রোডের পশ্চিম পাশে অবস্থিত। বিদ্যালয়টি রাজশাহীর প্রসিদ্ধ সমাজসেবক হাজি লাল মোহাম্মদ সরদারের পুত্র ও জাতীয় নেতা শহীদ এএইচ কামারুজ্জামানের পিতা আব্দুল হামিদ মিয়ার (১৮৮৭-১৯৭৬) স্মৃতি বহন করছে। প্রতিষ্ঠায় অবদান স্বরূপ তাঁর নামানুসারে বিদ্যালয়টির নাম রাখা হয় হামিদপুর নওদাপাড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। আব্দুল হামিদ মিয়া ছিলেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও পাকিস্তান শাসনামলে পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের সদস্য (এমএলএ) ছিলেন। তিনি ছাড়াও বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখেন আব্দুস সোবহান মণ্ডল, আব্দুস সামাদ, এমাদ আলী মণ্ডল, অ্যাডভোকেট এরফান আলী, হাফিজ উদ্দিন, সাইফুল্লাহ্ মণ্ডল, নূর মোহাম্মদ, হালেমা বেওয়া, পুষ্প বেওয়া, বক্স সরকার, রেজা, মো. সিয়াম উদ্দিন ও ওসমান মণ্ডল। তাঁদের প্রচেষ্টায় ১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়েছিল। খড়, টিনশেডের দেয়াল ছিল এর প্রাথমিক অবকাঠামো। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় সংস্কার ও উন্নয়ন সাধিত হয়। ১৯৮৩ সালে পাইলট স্কিমের মাধ্যমে পশ্চিম দিকের ভবনটি নির্মিত হয়। ভবনে উল্লিখিত লিপি অনুসারে ১৯৯৪ সালে ফ্যাসিলিটিজ ডিপার্টমেন্টের মাধ্যমে এর পূর্ব দিকের ভবন তৈরি হয়। ভূমি প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কবীর হোসেন ১৯৯৪ সালের এপ্রিল মাসে ভবনটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং তিনিই ১৯৯৪ সালের ৩০ অক্টোবর উদ্বোধন করেন। উত্তর পাশের শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান অডিটোরিয়াম ভবন তৈরি হয় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নে। মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ২০১২ সালের এপ্রিলে এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র সরিফুল ইসলাম বাবু ২০১৩ সালের ২৪ আগস্ট ভবনটির উদ্বোধন করেন। 
বিদ্যালয়ের মোট জমির পরিমাণ ২.২৮ একর। এর মধ্যে বিদ্যালয়ের চত্বর ০.৪০ একর। ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত একাডেমিক কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্র-ছাত্রী উভয়ই শিক্ষা গ্রহণ করে। শিক্ষক ১২ জন। কর্মচারী ৫ জন। বর্তমান বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র ১২ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু। প্রধান শিক্ষক মো. আফসার আলী।৭৫৮