ফিরে যেতে চান

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের (১৯১৪-১৯১৮খ্রি.) পর মিত্র শক্তির দ্বারা ব্রিটিশ সরকার তুরস্কের সাম্রাজ্য ভাগ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছিল। এতে ভারতবর্ষের মুসলমানদের মধ্যে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। ভারতবর্ষের মুসলমানদের সঙ্গে রাজশাহী  জেলার মুসলমানরাও আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েন। ইতিহাসে এটাই খেলাফত আন্দোলন নামে খ্যাত। এ আন্দোলনে মৌলানা মোহাম্মদ আলী ও মৌলানা শওকত আলী ভ্রাতৃদ্বর নেতৃত্ব দেন। মহাত্মা গান্ধীও আন্দোলনকে সমর্থন করেছিলেন। তিনি ১৯২১ খ্রিষ্টাব্দে অসহযোগ আন্দোলনেরও ডাক দেন। রাজশাহী জেলায় এ আন্দোলন যেভাবে গড়ে উঠেছিল তা থেকে ব্রিটিশ সরকার আঁচ করতে পেরেছিল ভারতবর্ষে তাদের শাসন অবসানের দিন ঘনিয়ে এসেছে। খেলাফত ও অসহযোগ আন্দোলন ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ায় রজিব উদ্দিন তরফদারের নেতৃত্বে বগুড়া জেলায় প্রবলভাবে প্রজা আন্দোলন গড়ে ওঠে। বাংলায় এ আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন শেরে বাংলা এ. কে ফজলুল হক। রাজশাহীর সাবেক পৌর চেয়ারম্যান খান বাহাদুর ইমাদউদ্দিন, মাদার বখ্শ, নওগাঁর মুসলিম আলী মোল্লা, চাঁপাইনবাবগঞ্জের মৌলানা ইদ্রিস আলী আহমদের নেতৃত্বে রাজশাহী জেলার বিভিন্ন অংশে এ আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছিল।