ফিরে যেতে চান

বিভিন্ন মেয়াদে ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ

১৯৯৭-১৯৯৮ : সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সহ-সভাপতি, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, সহ-সভাপতি রফিকুল হক (সেন্টু), সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুস সামাদ, যুগ্ম সম্পাদক মোজাফফর হোসেন (ওলি), যুগ্ম সম্পাদক সানারুল ইসলাম (ছবি), কোষাধ্যক্ষ ইমানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শাকিল, দপ্তর সম্পাদক আলী আজফার (লাল), সাংস্কৃতিক সম্পাদক মো. বরজাহান, প্রচার সম্পাদক মো. সেকান্দার আলী, ক্রীড়া সম্পাদক রেজাউল, করিম, সদস্য আফসার আলী, সদস্য মো. আখতার হোসেন, সদস্য সাহাদাত হোসেন (বুলা), সদস্য মো মোফাজ্জাল হোসেন (মাকু), সদস্য মো. মুকলেস, সদস্য মো.আবু ওবাইদা (পানু)।    
১৯৯৯-২০০০: সভাপতি রফিকুল হক (সেন্টু), সহ-সভাপতি মো.আখতার হোসেন, সহ-সভাপতিমো.মোজাফফর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মো.আব্দুস সামাদ, যুগ্ম-সম্পাদক মো.সানারুল ইসলাম (ছবি), যুগ্ম-সম্পাদক মো.মতিউর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো.সাকিল, কোষাধ্যক্ষ মো. ইমানুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক আলী আজফার লাল, প্রচার সম্পাদক মো.সেকেন্দার আলী, ক্রীড়া সম্পাদক মো.মোফাজ্জল হোসেন (মাকু), সাংস্কৃতিক সম্পাদক মো.আফসার আলী, সদস্য মো.শফিকুল আলম, সদস্য মো.আবুল কালাম, সদস্য মো.আবু ওবাইদা (পানু), সদস্য খন্দকার সুলতান, সদস্য মো.আরিফ হোসেন, সদস্য মো.আবদুল মাজেদ।
 ২০০১-২০০২: সভাপতি শ্রী বিভুতিভূষণ চাকী, সহ-সভাপতি মো.শামসুল আলম, সহ-সভাপতি দুলাল শেখ, সাধারণ সম্পাদক সাফদার আহম্মেদ মানিক, যুগ্ম সম্পাদক জোবায়ের হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক মিলন রহমান, কোষাধ্যক্ষ আলী আকবর, সাংগঠনিক সম্পাদক মো.সোলাইমান, দপ্তর সম্পাদক সাজ্জাদ আলী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসলাম, প্রচার সম্পাদক আব্দুল জাব্বার, ক্রীড়া সম্পাদক রায়হানুল ইসলাম, আইন বিষয়ক সম্পাদক আলতাফ হোসেন, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সদস্য সেকেন্দার আলী, সদস্য মীর জাহান আলী, সদস্য আব্দুল হান্নান, সদস্য মো.নাদিম, সদস্য বাবু, সদস্য হাবিল হেমব্রম।    
 ২০০৩-২০০৪: সভাপতি মো. আব্দুস সামাদ, সহ- সভাপতি মো.আখতার হোসেন, সহ-সভাপতি মো.মোজাফ্ফর হোসেন (ওলি), সাধারণ সম্পাদক মো.শাকিল, যুগ্ম সম্পাদক মো.সানারুল ইসলাম (ছবি), যুগ্ম সম্পাদক মো.আলী আজফার (লাল), কোষাধ্যক্ষ মো.ইমানুর রহমান (রানা), সাংগঠনিক সম্পাদক মো.আবুল কালাম আজাদ (হেলাল), দপ্তর সম্পাদক মো.মোফাজ্জল হোসেন (মাকু), সাংস্কৃতিক সম্পাদক মো.আফসার আলী, প্রচার সম্পাদক মো.সেকেন্দার আলী, ক্রীড়া সম্পাদক মো.আহসান হাবিব (খোকন), আইন বিষয়ক সম্পাদক মো.সানাউল্লাহ, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মো. শফিকুল আলম, সদস্য মো.আবুল কালাম, সদস্য মো.শফিকুল ইসলাম (মানিক), সদস্য মো.আবু ওবায়দা (পানু), সদস্য মো.নাদিম, সদস্য মো.শামসুল হক, সদস্য মো.কামরুল।
২০০৫-২০০৬৬৭৬: সভাপতি মো. গোলাম রাব্বানী (রিপন), সহ-সভাপতি মো. মোজাফ্ফর হোসেন (ওলি), সহ-সভাপতি দুলাল শেখ, সাধারণ সম্পাদক আলী আকবর হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক আজমীর আহমেদ, যুগ্ম সম্পাদক মো. সানারুল ইসলাম (ছবি), কোষাধ্যক্ষ মো. শাহীন রেজা (শাহীন), সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদ (হেলাল), দপ্তর সম্পাদক মো. মোফাজ্জল হোসেন (মাকু), সাংস্কৃতিক সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন (ডাবলু), প্রচার সম্পাদক মো. লুৎফর রহমান (লাল), ক্রীড়া সম্পাদক মো. আব্দুল হান্নান, আইন বিষয়ক সম্পাদক মো.আলতাফ হোসেন, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মো. সাহাদত হোসেন (বুলা), সদস্য মো. মাহবুব, সদস্য শ্রী মিন্টু কুমার সরকার (মিন্টু), সদস্য শেখ আরিফুল হক (আরিফ), সদস্য হাবিল হেমব্রম, সদস্য মো. হারুণ শেখ, সদস্য মো. সিরাজুল ইসলাম (সিরাজ)।        
৮ জুন ২০১৬ তারিখে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে ২০০৫-২০০৬ সালে নির্বাচিত কমিটির পর আর কোন নির্বাচন অনুষ্ঠিত না হওয়ায় ২০০৫-২০০৬ সালে নির্বাচিত কমিটিই বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছে। তবে নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নেই। ২০০৯ সালে ঘোষিত স্কেলে একাদশ গ্রেডকে দ্বিতীয় শ্রেণি ঘোষণা করায় সভাপতি ঐ নিয়মের আওতায় পড়ে যান ও পদত্যাগ করেন। তাঁর পরিবর্তে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হন সহ-সভাপতি দুলাল শেখ। ২০১১ সালে সিটি কর্পোরেশনের পানি শাখা পৃথক হয়ে রাজশাহী ওয়াসা হলে সাধারণ সম্পাদক পানি শাখার কর্মচারি হিসেবে রাজশাহী ওয়াসার কর্মচারীতে পরিণত হয়। ফলে পদটি শুন্য হয়ে পড়ে। এ শুন্য পদটি পূরণ করেন যুগ্ম সম্পাদক  আজমীর আহমেদ। বর্তমানে তিনিই দায়িত্ব পালন করছেন। 
উপরোক্ত তালিকার পূর্বে মো. ফইয়াজ খান, মো. আবুল কালাম আজাদ, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, আমজাদ হোসেন চেঙ্গিস, বিভূতিভূষণ চাকী বিভিন্ন মেয়াদে কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত হয়ে কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃত্ব প্রদান করেন। ১৯৭২ সালে কর্মচারী সংসদেও সূচনায় সভাপতি ছিলেন মো. ফইয়াজ খান এবং ১৯৮৫ সালে কর্মচারী ইউনিয়ন নিবন্ধনভুক্ত হওয়ার সময় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন যথাক্রমে মো. আবুল কালাম আজাদ ও আমজাদ হোসেন চেঙ্গিস।
(তথ্য- আব্দুস সামাদ, আমজাদ হোসেন চেঙ্গিস ও মোফাজ্জল হোসেন মাকু)