ফিরে যেতে চান

মো. নিযাম উল আযীম 

মো. নিযাম উল আযীম রাজশাহী মহানগরীর সাগরপাড়ার বল্লভগঞ্জে জন্ম গ্রহণ করেন। বর্তমানে তাঁর আবাসন ৪৪, সাগরপাড়া (বল্লভগঞ্জ), ঘোড়ামারা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী। তাঁর পিতা মরহুম ডা. আফসার আলী ছিলেন চিকিৎসক। মা মরহুমা মোসা. জিন্নাতুন নেসা ছিলেন গৃহিনী। দাদা খোদা বক্স কৃতিত্বের সঙ্গে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করায় ১৯২৪ সালে স্বর্ণ পদক লাভ করেন। সাত ভাই ও দুই বোনের মধ্যে নিযাম অষ্টম। তাঁর অন্য ভাইবোন ডা. রওশন আরা সৌদি আরবে কর্মরত, আয়েশা খাতুন বিএ গৃহিনী, ডা. আনসার আলী যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত, আনোয়ার আযীম এমএসসি ব্যবসায়ী, ড. আহসান আলী যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত, মফিদ উল আযীম একটি বেসরকারি কোম্পানির কর্মকর্তা, কুতুবুল আযীম ব্যবসায়ী ও নাসিম উল আযীম যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত। নিযামের শৈশব ও কৈশোর অতিবাহিত হয় সাগরপাড়াতেই। ১৯৮১ সালে রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল থেকে তিনি এসএসসি, ১৯৮৩ সালে রাজশাহী সিটি কলেজ থেকে এইচএসসি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮৫-৮৬ শিক্ষাবর্ষে বিএ পাস করেন। 
২০০২ সালের ২৫ এপ্রিল রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে ২১নং ওয়ার্ডের কমিশনার নির্বাচিত হন। একই ওয়ার্ডের ২০০৮ সালের ৪ আগস্ট ২য় বার ও ২০১৩ সালের ১৫ জুন ৩য় বার  রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন, ২০০৯ এর ধারা ১০৫ এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার ৩১ মে ২০১৫ তারিখে প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে তাঁকে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সকল প্রকার আর্থিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষমতা অর্পণ করে। ২০১৫ সালের ২ জুন তিনি সরকার প্রদত্ত এ দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। তিনি ১ এপ্রিল ২০১৭ তারিখ শনিবার পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।  
রাজনীতিতে নিযাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে সক্রিয়। তিনি রাজশাহী মহানগরী শাখার সদস্য। খেলাধুলা তাঁর প্রিয় শখ। তরুণ জীবনে তিনি ক্রিকেটার ছিলেন। তিনি রাজশাহী জেলা দল ও মুক্তিসংঘ টিমের পক্ষে খেলতেন। একজন কাউন্সিলর, প্রাক্তন খেলোয়াড় ও সমাজসেবক হিসেবে তিনি সমাজের নানাবিধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। শিরোইল মোল্লা মিলে অবস্থিত সূর্যকণা হাই স্কুল স্থাপনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। বর্তমানে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির তিনি সভাপতি। বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা ও বাংলাদেশ সুটিং ফেডারেশনের সদস্য। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও ক্রীড়া সংগঠনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। শিরোইল উদ্যান নির্মাণে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। 
নিযামের স্ত্রী মোসা. কিসমত আরা বেগম। এ দম্পত্তির দুটি পুত্র সন্তান মো. আমান আযীম ও মো. সিয়াম আযীম। ২০১৬ সালে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে আমান জার্মানের বন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত। সিয়াম নিউ গভ. রাজশাহী কলেজে বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।