অধ্যায় ৪: প্রশাসনিক ইতিহাস ও অফিস

চিফ মেট্রোপলিটন আদালত


চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত 
CMM-Chief Metropolitan Magistrate Court

রাজশাহী মহানগরীর ফৌজদারী মামলার জন্য পূর্বে সিটি আদালত ছিল। রাজশাহী মেট্রোপলিটন সিটি হওয়ার পর ১৯৯৫ সালের ১৬ ডিসেম্বর সিটি আদালতের পরিবর্তে মেট্রোপলিটন আদালত প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০০২ সালের ৪ ডিসেম্বরের সিএমএম আদালতের এক তথ্যানুসারে এ আদালতে ১টি চিফ মেট্রোপলিটন আদালত ও ৩টি  মেট্রোপলিটন আদালত ছিল। ৯ অক্টোবর ২০০৫ তারিখের আমার দেশ পত্রিকার তথ্যানুসারে এ আদালতে ৪২০০ টি মামলা বিচারাধীন ছিল। এসব মামলা পরিচালনার জন্য ৮ জন বিচারকের প্রয়োজন হলেও মাত্র ৪ জন ছিল।
২০০৭ সালের ১ নভেম্বর সিএমএম আদালত নির্বাহী বিভাগ থেকে পৃথক হয়ে বিচার বিভাগে চলে আসে এবং জেলা জজের আওতায় কার্যক্রম শুরু করে। পরবর্তীতে মহানগর দায়রা জজের প্রশাসনে অন্তর্ভুক্ত হয়। ২০১৩ সালের ৪আগস্ট মহানগর দায়রা জজের কার্যক্রম শুরু হয়। ২০১৫ সালের ৫ এপ্রিল প্রাপ্ত তথ্যানুসারে ১জন অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ ও ২জন যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ কর্মরত আছে। সিএমএম আদালতের মঞ্জুরীকৃত পদ ১জন সিএমএম, ১জন অতিরিক্ত সিএমএম ও ৫জন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট। তবে কর্মরত আছে ১জন সিএমএম ও ৩জন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট। সিএমএম আদালতে মোট বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৮৩৮০টি।৪৩৮ সিএমএম আদালত জেলা জজ আদালতের একটি ভবন ব্যবহার করছে।৪৩৭
 


রাজশাহীর কথা

আনারুল হক আনা

তৃতীয় সংস্করণ, এপ্রিল 2018

প্রকাশনা : DesktopIT


www.desktopit.com.bd