অধ্যায় ৫: রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন

ড্রেনেজ ব্যবস্থা


ড্রেন নির্মাণ রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের চলমান কার্যক্রম। জলাবদ্ধতা দূরীকরণের উদ্দেশ্যে মহানগরীর সমস্ত এলাকায় টারসিয়ারি, সেকেন্ডারি ও প্রাইমারি ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে। ১ থেকে ২ ফুট প্রস্থ টারসিয়ারি, ২ থেকে ৩ ফুট সেকেন্ডারি ও ৩ ফুট থেকে বেশি প্রস্থের ড্রেনগুলো প্রাইমারি পর্যায়ের অন্তর্ভুক্ত। রাজশাহী মহনগরীর বেশির ভাগ প্রাইমারি ড্রেন  ১৩ থেকে ১৪ ফুট প্রস্থ। তবে ১৬ ফুট প্রস্থের ড্রেন আছে।৮০১ রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশল বিভাগের ৭ এপ্রিল ২০০৩ তারিখের তথ্যানুসারে বিভিন্ন ধরনের ড্রেনের মোট দৈর্ঘ্য ৬৮.৬৭ কিলোমিটার। এর মধ্যে ৪৭.১৭ কিলোমিটার পাকা ও ২১.৫০ কিলোমিটার কাঁচা। ৫ আগস্ট ২০১৫ তারিখে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশল বিভাগের খসড়া হিসেব অনুযায়ী পাকা, কাঁচা উভয় ড্রেনের অস্তিত্ব বিদ্যমান। মোট দৈর্ঘ্য ৫২০.২১ কিলোমিটার। এর মধ্যে পাকা অর্থাৎ আরসিসি ও ব্রিক ৩৪৭.০৫ কিলোমিটার। কাঁচা বা মাটির ড্রেনের দৈর্ঘ্য ১৭৩.১৬ কিলোমিটার। প্রধান বা প্রাইমারি ড্রেনসমূহ কেশবপুর ড্রেন, সার্কিট হাউস ড্রেন, কাজলা ড্রেন, সাতবাড়িয়া ড্রেন,  ও দারুশা কোর্ট অঞ্চলের চালনা ড্রেন পাকা করা হয়েছে। এ সব ড্রেনের সঙ্গে সেকেন্ডারি ও টারসিয়ারি ড্রেনের উন্নয়ন করা হয়েছে।

নওদাপাড়া এলাকায় সিটিহাটের পাশের ড্রেন (ছবি- জানুয়ারি ২০১৭)

প্রয়োজনের তাগিদে বিভিন্ন সময়ে ড্রেনগুলো নির্মাণ করা হয়। পৌরসেবা উন্নয়নের উদ্দেশ্যে ড্রেনেজ প্রকল্পও গ্রহণ করা হয়। ড্রেনেজ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের বাস্তবায়নকাল ছিল মার্চ ১৯৯৭ থেকে জুন ২০০৩ পর্যন্ত। জিওবি প্রকল্প নামে বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় প্রকল্পটি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হয়। প্রকল্পটিতে ব্যয় হয় ২৩ কোটি ৭ লাখ ১১ হাজার টাকা।
ড্রেনেজ প্রকল্পের ২য় পর্যায়েরও বাস্তবায়ন হয়েছে। ২য় পর্যায়ের ব্যয় নির্ধারণ করা হয় ২১ কোটি ৫৯ লক্ষ ৫৮ হাজার টাকা। বাস্তবায়নের মেয়াদ ধরা হয়েছিল এপ্রিল ২০০৪ হতে জুন ২০০৬ পর্যন্ত। ৩য় ও শেষ পর্যায়ে ১৬৯.২২ কি.মি. নর্দমা নির্মাণে প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়। প্রকল্পটি সরকারের জিওবি ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব অর্থায়ন রয়েছে। প্রকল্পটির ব্যয় প্রায় ১৩৬ কোটি ৭২ লক্ষ টাকা। প্রকল্পের আওতায় নর্দমা নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় প্রাইমারী নর্দমার কাদামাটি নিয়মিতভাবে অপসারণে নর্দমার পাশে প্রায় ৮.৭২ কিলোমিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে। ১৬ আগস্ট ২০১৭ তারিখে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে প্রকল্পটির সমুদয় কাজ জুন ২০১৮ এর মধ্যে শেষ হবে।৮০১ এ প্রকল্প বাস্তবায়নের ফলে মহানগরীর ড্রেনগুলো বেশ প্রশস্ত হয়েছে। 
 


রাজশাহীর কথা

আনারুল হক আনা

তৃতীয় সংস্করণ, এপ্রিল 2018

প্রকাশনা : DesktopIT


www.desktopit.com.bd